সারাদেশ

কাজী খুররমের মনমর্জিতে চলছে স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক, এমডি অপসারণের চেষ্টায় কেন্দ্রীয় ব্যাংকে তলব

ডেস্ক রিপোর্ট: কাজী খুররমের মনমর্জিতে চলছে স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক, এমডি অপসারণের চেষ্টায় কেন্দ্রীয় ব্যাংকে তলব

ব্যবস্থাপনা পরিচালক-কে (এমডি) বাধ্যতামূলক ছুটিতে পাঠিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের ধমক খেয়েছে স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ। ব্যাংকের চেয়ারম্যান নয়, বরং এই পর্ষদ এখন চলছে স্রেফ চেয়ারম্যানের ছেলের অঙ্গুলিহেলনে। তিনি নিজের মনমর্জি মতো নিয়োগ দিচ্ছেন আর হটিয়ে দিচ্ছেন। থোড়াই তোয়াক্কা করছেন ব্যাংকের নীতিমালার। নিয়ম ভাঙার অভিযোগে বাংলাদেশ ব্যাংক তলব করেছে স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংককে। কোনো সন্তোষজনক জবাব না পেয়ে এমডিকে হাবিবুর রহমানকে পুনর্বহাল করার নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এ নিয়ে রোববার (৩১ মার্চ) পরিচালনা পর্ষদের সভা ডেকেছে ব্যাংকটি।

তবে পর্ষদের কথা কতটা গ্রাহ্য হবে ব্যাংকটির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান কাজী আকরাম উদ্দিন আহমেদের ছেলে ও ব্যাংকের সর্বকনিষ্ঠ পরিচালক কাজী খুররম আহমেদের কাছে সেটাই এখন দেখার বিষয়।

আনুষ্ঠানিক ক্ষমতা না থাকলেও স্রেফ ‘বাপের জোরে’ এই কাজী খুররম আহমেদ তার মত-মর্জিতে ব্যাংক চালাচ্ছেন। যার সবশেষ উদাহরণ ব্যবস্থাপনা পরিচালককে অপসারণের চেষ্টা।

ব্যাংকটির দায়িত্বশীল একাধিক সূত্র জানায় ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে হাবিবুর রহমানকে মাত্র এক বছর আগেই নিয়োগ দেওয়া হয় এই ব্যাংকে। সেসময়ও এই নিয়োগের একমাত্র প্রস্তাবকারী ছিলেন কাজী খুররম আহমেদ। এক বছর এক মাস যেতে না যেতেই সেই কাজী খুররমই হাবিবুর রহমানকে সরিয়ে দিতে চাইছেন। অভিযোগ হাবিবুর জামায়াতে ইসলামীর লোক। আর সে কারণে তাকে ব্যাংকে রাখা যাবে না।

ঘটনাটি গত ২৯ ফেব্রুয়ারির। সেদিন ব্যাংকের ৩৮৮তম পর্ষদ সভায় নিয়মিত সভা শেষে পুরোপুরি এজেন্ডা বহির্ভূতভাবে এমডিকে অপসারণের প্রস্তাব উত্থাপন করেন কাজী খুররম। এতে হতবাক হন ব্যাংকের অন্য পরিচালকরা।

সূত্র জানায় খুররম আহমেদ সে সময় পর্ষদকে বলেন, “এই এমডিকে রাখলে ব্যাংকের ইমেজ নষ্ট হয়ে যাবে এবং যে কোন সময় পুলিশ আমাদের গ্রেফতার করতে পারে।”

বিষয়টি সহজে মেনে নিচ্ছিলেন না সভায় উপস্থিত কয়েকজন পরিচালক। তারা এই প্রস্তাবের প্রতিবাদ জানান। কিন্তু কারো আপত্তিই আমলে না নিয়ে হাবিবুর রহমানকে বাধ্যতামূলক ছুটিতে পাঠানোর একক সিদ্ধান্ত নেন খুররম। ব্যাংকটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) হিসেবে মো. হাবিবুর রহমান যোগ দেন ২০২৩ সালের ১ ফেব্রুয়ারি। এর আগে তিনি ইউনিয়ন ব্যাংক ও সাউথইস্ট ব্যাংকের অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এএমডি) এবং তার আগে এনসিসি ব্যাংক ও যমুনা ব্যাংকের উপব্যবস্থাপনা পরিচালক (ডিএমডি) হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

বেসরকারি খাতের তৃতীয় প্রজন্মের ব্যাংক হিসেবে পরিচিত স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক দীর্ঘদিন প্রচলিত ধারায় চললেও ২০২১ সালের ১ জানুয়ারি থেকে পূর্ণাঙ্গ শরিয়াহভিত্তিক ব্যাংক হিসেবে কার্যক্রম শুরু করে। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, কাজী আকরাম উদ্দিন আহমেদ চেয়ারম্যান হলেও ব্যাংকের সকল কার্যক্রম চলে কাজী খুররম আহমেদের ইশারায়। ঋণ বিতরণ থেকে শুরু করে নিয়োগ, বদলি, পদোন্নতি সবকিছুই নিয়ন্ত্রণই তার হাতে। তিনিই মূলতঃ এমডির ভূমিকা পালন করেন। এসব কারণে খুররম আহমেদের সঙ্গে বিবাদ তৈরি হয় হাবিবুর রহমানের। আর তাতে খুররম ক্ষিপ্ত হয়ে এমডিকে বিদায় করার উদ্যোগ নেন।

গত ২৯ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত পর্ষদ সভা প্রায় ২ ঘণ্টা চলার পর কাজী খুররম বলেন, কিছু জরুরি আলোচনা আছে। এ কথা বলে এমডিকে পর্ষদ সভা থেকে বের করে দেন।

তিনি চলে গেলেই খুররম বলেন, “আমাদের এমডি সাহেব জামায়াতে ইসলামীর লোক। তিনি অর্থপাচারের সঙ্গে জড়িত। কোটি কোটি টাকা বিদেশে পাচার করেছেন। তাই তাকে ব্যাংকে রাখা যাবে না। এই মুহূর্ত থেকেই উনাকে (এমডি) ছুটিতে পাঠাবো। এই এমডিকে রাখলে ব্যাংকের ইমেজ নষ্ট হয়ে যাবে এবং যে কোন সময় পুলিশ আমাদের গ্রেফতার করতে পারে।”

খুররম আহমেদের একক সিদ্ধান্তে হতবাক হয়ে পড়েন পরিচালকরা। দুই জন পরিচালক এ সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ করেন। নিরব ছিলেন আরও দুইজন। কাজটি ঠিক হলো না বলে মন্তব্য করেন স্বতন্ত্র দুই পরিচালক। অনলাইনে অংশ নেওয়া পরিচালকদের মতামত না নিয়ে শেষ করা হয় সভা।

এই খবর গণমাধ্যমে প্রচারের পরই স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকের চেয়ারম্যান কাজী আকরাম উদ্দিন আহমেদ ও তার ছেলে ওই ব্যাংকের পরিচালক কাজী খুররম আহমেদকে তলব করে বাংলাদেশ ব্যাংক। এমডিকে বাধ্যতামূলক ছুটিতে পাঠানোর কারণ জানতে চাইলে সন্তোষজনক কোন জবাব দিতে পারেননি তারা। পরে এমডিকে পুনঃবহালের নির্দেশ দেয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এসময় তাদেরকে জানিয়ে দেওয়া হয় এ ধরণের সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে অবশ্যই বাংলাদেশ ব্যাংককে অবগত করতে হবে। এমডি নিয়োগ অপসারণে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নীতিমালা অনুসরণ করতে হবে।

হাবিবুর রহমানের জোরপূর্বক ছুটিতে পাঠানোর বিষয়টি ৩১ মার্চের পর্ষদ সভায় আলোচনা হবে বলে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে।

বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্র জানায়, এমডির বিরুদ্ধে এমন একটি গুরুতর অভিযোগ পর্ষদ সভায় এজেন্ডায় না তুলে বিবিধ আলোচনায় সিদ্ধান্ত নেওয়া যায় না। সর্বসম্মতিতে সিদ্ধান্ত না হওয়ার পরও একজন পরিচালকের জোরপূর্বক সিদ্ধান্ত চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে। ওই পর্ষদ সভাপতি এমডির বাধ্যতামূলক ছুটির সিদ্ধান্ত দেননি। এমডিকে অপসারণে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সার্কুলার যথাযথভাবে পরিপালন করা হয়নি।

কাজী খুররম আহমেদ ব্যাংকটির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান কাজী আকরাম উদ্দিন আহমেদের ছেলে হওয়ায় বহু অনিয়ম করেও বহাল রয়েছেন বলে জানিয়েছেন ব্যাংকটির কয়েকজন কর্মকর্তা।

সার্বিক বিষয়ে স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকের পরিচালক কাজী খুররম আহমেদের বক্তব্য জানতে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি মোবাইল ফোনের কল ধরেননি। পরবর্তীতে ব্যাংকের চেয়ারম্যান কাজী আকরাম উদ্দিন আহমেদকে ফোন করা হলে তিনি বলেন ‘আমি অসুস্থ, কথা বলতে পারব না’।

সংবাদটি প্রথম প্রকাশিত হয় বার্তা ২৪-এ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *