বিনোদন

বিয়ের সিদ্ধান্ত নিতে কিছুটা সময় নিয়েছি

ডেস্ক রিপোর্টঃ জনপ্রিয় অভিনেত্রী জিনাত শানু স্বাগতা। সম্প্রতি আলোচনায় এসেছেন পেশাজীবন ও ব্যক্তিজীবন দুই ক্ষেত্রেই। জীবনটা আবারও নতুন করে সাজাতে চলেছেন তিনি। শিগগিরই তার বিয়ে। এছাড়া চলচ্চিত্র নির্মান করতে যাচ্ছেন তিনি। এসব নিয়ে বার্তা২৪.কমের সঙ্গে কথা বলেছেন তিনি

কী করছেন?

এখন ঢাকার অদূরেই গ্রাম্য পরিবেশে একটি নাটিকার শ্যুটিং করছি। মাতিয়া বানু শুকুর পরিচালনায় এটি বিটিভির জন্য নির্মিত একটি সরকারি জনসচেতনতামূলক কাজ। আমার সহশিল্পী হিসেবে এখন সেটে উপস্থিত আছেন শিল্পী সরকার অপু।

শুনলাম বিয়ে করছেন?

ঠিকই শুনেছেন।

প্রিয় পোষ্য’র সঙ্গে ড. হাসান আজাদ ও স্বাগতা, ছবি : বার্তা২৪.কম

পাত্র কি শোবিজের কেউ?

না। তিনি একেবারেই শোবিজের বাইরের মানুষ। তার নাম ড. হাসান আজাদ। পেশা ব্যবসা। মানুষ হিসেবে চমৎকার, উচ্চশিক্ষিত, মার্জিত ব্যক্তিত্বের অধিকারী। এসব কারণেই তাকে জীবনসঙ্গী হিসেবে বেছে নিতে চাইছি।

আপনাদের পরিচয় কিভাবে?

কমন ফ্রেন্ডের মাধ্যমে পরিচয়। এরপর টুকটাক কথা বলা। ওই কথা বলতে বলতেই ভালোলাগা ও আস্থার জায়গা তৈরী হওয়া। বিয়ের সিদ্ধান্ত নিতে কিছুটা সময় নিয়েছি। আগে কিছুদিন দুজন দুজনকে দেখার পর মনে হলো আমরা বাকী জীবন একসঙ্গেই থাকতে চাই। প্রথমে নিজেরাই বিয়ের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিই। যেহেতু আমরা যথেষ্ট ম্যাচিউর, ফলে আমাদের সিদ্ধান্তকে পরিবারের সবাই খুব ভালোভাবে গ্রহণ করেছে।

স্বাগতা, ছবি : বার্তা২৪.কম

কবে নাগাদ বিয়ে করতে চান?

চাইলেই এখন আর দ্রুত বিয়ে করতে পারব না। কারণ বিয়েটা একটু গুছিয়ে ঠিকঠাকভাবেই করতে চাই। জাতীয় নির্বাচনে দেশের সামগ্রিক যে পরিস্থিতি তাতে এখন বিয়ের তারিখ ফেলানো ঠিক নয়। তাই নির্বাচন শেষ হলেই বিয়েটা করতে চাই। এখনই নির্দিষ্ট তারিখ বলতে পারছি না।

সিনেমা বানাতে চলেছেন। সে বিষয়ে জানতে চাই?

আমার তো সিনেমা বানানোর শখ অনেক দিনের। কারণ আমার পড়াশুনাটাই ফিল্ম মেকিং নিয়ে। এরপর মঞ্চ নাটক নির্দেশনা দিয়েছে। এবার প্রপার একটি সিনেমা বানাতে যাচ্ছি। বিটিভি থেকে সুযোগটি পেয়েছি। ছবির অর্থায়ণ, তত্বাবধান ও প্রচারণায় সহায়তা করবে বিটিভি। তাই আমার মতো স্বপ্নবাজ মানুষের সিনেমা নির্মানের আশা পূরণ হতে চলেছে। নতুন যারা চলচ্চিত্র বানাতে চায়, মেধা ও যোগ্যতা আছে কিন্তু অর্থায়নের জন্য পারছে না তাদের জন্য বিটিভি একটি প্রকল্প করেছে। ‘ছোট ছবি বড় স্বপ্ন’ নামের সেই প্রকল্পে উত্তীর্ণ হওয়ার জন্য যা যা যোগ্যতা দরকার সবটাই আমার ছিল। এমনকি আমার মাস্টার্স ফাইনাল পরীক্ষার জন্য একটি শর্টফিল্মের গল্প রেডি করেছিলাম। সেটিই এখানে জমা দিই। সবমিলিয়ে আমার প্রস্তাবনাটি পাশ হয়।

প্রিয় পোষ্য’র সঙ্গে ড. হাসান আজাদ ও স্বাগতা, ছবি : বার্তা২৪.কম

আপনার ছবিটি কী ধরনের হবে?

এটি একটি ট্রাজেডি গল্প। এতে প্রেম ভালোবাসা আছে। রোমিও জুলিয়েট, লাইলি মজনু কিংবা কেয়ামত থেকে কেয়ামত যে ধরনের ছবি এটি সে ধরনেরই গল্প। এখনই কাস্টিং ঠিক হয়নি। দুজনের কথা ভেবে রেখেছি। তাদের সঙ্গে এখনো কথা হয়নি। তবে এটুকু নিশ্চিত যে আমি আমার ছবিতে অভিনয় করব না। প্রথম ছবিতে নিজে অভিনয় করলে প্রেশার পড়ে যাবে অনেক। সেটি আমি এখন চাই না। সিনেমার শুটিংয়ের আগে একটি কর্মশালা করানো হবে আমাদের। সেটি আগামী মাসে হবে। এরপর তো জাতীয় নির্বাচন। সব মিলিয়ে সিনেমার কাজটিও মনে হয় আগামী বছরের আগে শুরু করতে পারব না।

সংবাদটি প্রথম প্রকাশিত হয় বার্তা ২৪ এ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *