জন্মদিনে ক্যাটরিনা

কৃষি

৩৫-এ পা দিলেন বলিউড শিল্পী ক্যাটরিনা কাইফ। পরিবার, বান্ধবীদের সঙ্গে সোমবার লন্ডনে জন্মদিন কাটিয়েছেন ক্যাটরিনা৷ ছবি বাছাই, অভিনয় এবং রুচি তাঁকে বলিউডের প্রথম সারিতে নিয়ে গেছে। ‘কামলি কামলি’, ‘চিকনি চামেলি’, ‘শিলা কী জওয়ানি’, ‘কালা চশমা’ আর ‘আফগান জালেবি’ গানে দুর্দান্ত নাচের কারণে সুপারডুপার হিট। ‘নিউইয়র্ক’, ‘এক থা টাইগার’, ‘টাইগার জিন্দা হ্যায়’, ‘রাজনীতি’, ‘ধুম থ্রি’র মতো আরও অনেক ছবিতে পর্দা মাতিয়েছেন ক্যাটরিনা কাইফ। মডেল হতেই এসেছিলেন ভারতে। ২০০০ সালে ‘বুম’ নামের একটি ছবি দিয়েই যাত্রা শুরু ক্যাটরিনার। ছবিটি বক্স অফিসে মুখ থুবড়ে পড়ে। এরপর ভাইজান সালমান খানের হাত ধরে আবার শুরু করেন। ‘ম্যায়নে প্যায়ার কিউ কিয়া’ দিয়ে টিকে যান বলিউডে। বলিউডে ক্যাটরিনাকে পথ দেখান সাল্লু।

হিন্দি ছবির পাশাপাশি তেলেগু ও মালায়লম ছবিতেও অভিনয় করেছেন ক্যাটরিনা। ক্যাটরিনা কাইফের জন্ম হংকংয়ে। ক্যাটরিনার আরও সাত ভাইবোন রয়েছে। শিগগিরই ক্যাটরিনা বিগ বি অমিতাভ বচ্চন আর আমির খানের সঙ্গে ‘থাগস অব হিন্দুস্তান’ এবং বলিউড বাদশাহ শাহরুখ খানের সঙ্গে ‘জিরো’। আনন্দ এল রাইয়ের নতুন ছবি ‘জিরো’তে ক্যাটরিনাকে দেখা যাবে এক নেশাগ্রস্ত নায়িকার চরিত্রে। ‘থাগস অব হিন্দুস্থান’ এ বছরের নভেম্বরে আর ‘জিরো’ ডিসেম্বরে মুক্তি পাবে। এরপর বরুণ ধাওয়ানের সঙ্গে নাচের ওপর একটি ছবি করবেন তিনি।

সম্প্রতি ক্যাটরিনা সালমান খানের সঙ্গে সুপারহিট ছবি ‘রেস ৩ ’-তে ছিলেন। ‘দাবাং রিলোডেড ট্যুর’-এ অংশ নিয়েছেন তিনি। সালমান খানের সঙ্গে ক্যাটরিনার প্রেম নিয়ে বেশ সরব ছিল বলিউডপাড়া। রণবীর কাপুরের সঙ্গেও বেশ কিছুদিন সম্পর্কে জড়ান। সব সম্পর্ক শেষে এখন নিজেকে সিঙ্গেল বলে পরিচয় করান ক্যাটরিনা। একটি সাময়িকীর পাঠকদের ভোটে ২০০৮ থেকে ২০১০ পর্যন্ত পরপর তিন বছর বিশ্বে সবচেয়ে যৌন আবেদনময়ী এশীয় নারী ছিলেন ক্যাটরিনা। ব্রিটিশ নাগরিক ক্যাটরিনা কাজের ভিসা নিয়ে ভারতে কাজ করছেন।

ক্যাটরিনার ১০ বছর আগের জন্মদিনের একটা ক্ষত শুকিয়ে গেলেও বিটাউন কখনো সেই ঘটনার কথা ভুলবে না। মুম্বাইয়ের বান্দ্রার এক অভিজাত রেস্তোরাঁয় ক্যাটরিনার জন্মদিনের পার্টি হয়। বড় তারকারা এসেছিলেন সেই পার্টিতে। সালমান খান আর শাহরুখ খানও এসেছিলেন। কোনো একটি বিষয় নিয়ে এই দুই খানের মধ্যে বচসা হয়। এমনকি তা হাতাহাতির পর্যায়ে চলে যায়। বলিউডের এই দুই খান রেগে পার্টি ছেড়ে বেরিয়ে যান। এরপর পাঁচ বছর পর্যন্ত দুজনের মুখ দেখাদেখি বন্ধ ছিল। ২০১৩ সালে রাজনীতিবিদ বাবা সিদ্দিকির ইফতার অনুষ্ঠানে আবার দুই খান এক হয়ে যান। সব মান-অভিমান ভুলে সালমান আর শাহরুখ একে অপরকে আলিঙ্গন করেন। তথ্যসূত্র: বলিউড লাইফ, হিন্দুস্তান টাইমস।