সারাদেশ

রাজধানীতে জামায়াতের মিছিল

ডেস্ক রিপোর্ট: রাজধানীতে জামায়াতের মিছিল

ছবি: বার্তা২৪

বিএনপি-জামায়াত ও সমমনা দলগুলোর ডাকা নবম দফার অবরোধের দিন রাজধানীর বিভিন্ন স্পটে মিছিল করেছে জামায়াতে ইসলামী। নিবন্ধন বাতিলের প্রতিবাদ, কেয়ারটেকার সরকার পূনর্বহাল, নেতাকর্মীদের মুক্তি, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি রোধ সহ বিভিন্ন দাবিতে স্লোগান দেয় তারা।

রোববার (৩ ডিসেম্বর) সকাল ৭টায় রাজধানীর খিলগাঁও এলাকায় অবরোধের সমর্থনে মিছিল করে নেতাকর্মীরা। জামায়াতে ইসলামী ঢাকা মহানগর দক্ষিণের কর্মপরিষদ সদস্য আব্দুস সালাম মিছিলের নেতৃত্ব দেন।

এদিন সকালে শাহবাগে সড়ক অবরোধ করে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের নেতাকর্মীরা। ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের মজলিসে শুরা সদস্য শাহীন আহমদ খানের নেতৃত্বে এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের মজলিসে শুরা সদস্য এডভোকেট মাহফুজুল হক চৌধুরী, মোস্তাফিজুর রহমান শাহীন।

এছাড়া জুরাইন, নারায়ণগঞ্জ, যাত্রাবাড়ী, ওয়ারী ও কলাবাগান এলাকায় সড়ক অবরোধ করে মিছিল দেয় জামায়াতে ইসলামীর নেতাকর্মীরা। 

ঘোষণাতেই সীমাবদ্ধ অবরোধ, প্রভাব নেই রাজধানীতে

ছবি: বার্তা২৪

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল বাতিল, সরকারের পদত্যাগ, নির্দলীয় সরকার গঠন ও কারাবন্দি নেতাদের মুক্তির দাবিতে নবম দফায় ডাকা বিএনপির ৪৮ ঘণ্টার অবরোধ শুরু হলেও তেমন প্রভাব নেই জনমনে। নির্বিঘ্নে চলছে যানবাহন, অন্যান্য দিনের তুলনায় রাস্তায় বেড়েছে পথচারীও।

রোববার (৩ ডিসেম্বর) সকাল থেকে রাজধানীর মহাখালী, ফার্মগেট, শাহবাগসহ বেশ কিছু এলাকা ঘুরে দেখা গেছে রাস্তায় স্বাভাবিক দিনের মতই যানচলাচলের ফলে যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। ব্যক্তিগত গাড়ি, সিএনজি ও ছোট যানবাহনগুলোর সংখ্যাও বেড়েছে সড়কে। এছাড়া সকালে কর্মস্থানে যাওয়ার প্রয়োজনে অবরোধ উপেক্ষা করেই চলাচল করছে সাধারণ মানুষও। তবে দূরপাল্লার বাস চলাচল কিছুটা কম দেখা গেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গাবতলি, মহাখালী ও সায়দাবাদ বাস টার্মিনাল থেকে দূর পাল্লার বাস ছাড়ার প্রস্তুতি নিয়ে যাত্রীদের জন্য অপেক্ষা করছে পরিবহণ সংশ্লিষ্টরা। কাঙ্ক্ষিত যাত্রী না পাওয়ায় অলস সময় কাটাচ্ছে এসব টার্মিনালের শ্রমিকরা। রাজধানীতে কর্মব্যস্ততা থাকলেও ভয় ও উৎকণ্ঠায় দূরের পথে যাওয়া থেকে বিরত থাকছে যাত্রীরা।

এদিকে অবরোধ বাস্তবায়নের সকালে কাকরাইল থেকে শান্তিনগর পর্যন্ত মিছিল করেছে মৎস্যজীবী দল। মিছিলে অংশ নিয়েছিলেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী। এসময় তিনি, সারাদেশে সর্বাত্মকভাবে নবম দফার এই অবরোধ পালনে নেতাকর্মীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

তবে যে কোন প্রকার বিশৃঙ্খলা এড়াতে সজাগ আছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

;

‘আমরা আর মামুরা’ স্টাইলে নির্বাচন হতে দেওয়া হবে না: রিজভী

মৎস্যজীবী দলের আয়োজনে এই মিছিল হয়

‘অবৈধ আওয়ামী লীগ সরকার দেশে ‘আমরা আর মামুরা স্টাইলে’ নির্বাচন করার অপচেষ্টা করছে। কিন্তু বাংলাদেশের জনগণ এ ধরনের নির্বাচন হতে দেবে না’ বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী।

রোববার (৩ ডিসেম্বর) সকালে বিএনপির ডাকা ৯ম দফার অবরোধ কর্মসূচির প্রথম দিনে কাকরাইল থেকে শান্তিনগর মোড় পর্যন্ত মিছিল শেষ এসব কথা বলেন তিনি।

সরকারের পদত্যাগ, নির্বাচনী তফসিল বাতিল, খালেদা জিয়া ও দলের মহাসচিবসহ নেতাকর্মীদের মুক্তির দাবিতে মৎস্যজীবী দলের আয়োজনে এই মিছিল হয়।

তিনি বলেন, শেখ হাসিনা দেশকে বিক্রি করে হলেও ক্ষমতায় থাকতে চান। তার মধ্যে কোনো ধরনের দেশপ্রেম নেই। দেশ থাকলো না থাকলো, দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব থাকলো না থাকলো তাতে তার কোনো কিছু আসে যায় না। তর চাই শুধু ক্ষমতা। কিন্তু চক্রান্ত করে আর ক্ষমতায় থাকা যাবে না। নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকার ছাড়া বাংলাদেশে আর কোনো নির্বাচন জনগণ হতে দেবে না।

মিছিলে অংশ নেয় বিএনপির সহ যুববিষয়ক সম্পাদক মীর নেওয়াজ আলী নেওয়াজ, জাতীয়তাবাদী মৎসাজীবী দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সচিব আব্দুর রহিম, কেন্দ্রীয় যুগ্ম আহ্বায়ক ওমর ফারুক পাটোয়ারী, মো. শাহ আলম, কবির উদ্দিন মাস্টার, মহানগর দক্ষিণের সদস্য সচিব কেএম সোহেল রানা, মহানগর উত্তরের সদস্য সচিব মোহাম্মদ বাকীবিল্লাহ, নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি এইচ এম হোসেন, মুন্সীগঞ্জ জেলার আহ্বায়ক হাজী আনোয়ার হোসেন, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ইব্রাহিম চৌধুরী প্রমুখ।

;

নবম দফায় বিএনপির অবরোধ শুরু

ছবি: সংগৃহীত

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল বাতিল, সরকারের পদত্যাগ, নির্দলীয় সরকার গঠন ও কারাবন্দী নেতাদের মুক্তির দাবিতে বিএনপির ডাকা নবম দফা ৪৮ ঘণ্টার অবরোধ শুরু হয়েছে।

রোববার (৩ ডিসেম্বর) ভোর ৬টা থেকে শুরু হয়ে এ অবরোধ চলবে মঙ্গলবার (৫ ডিসেম্বর) ভোর ৬টা পর্যন্ত। ২৮ অক্টোবরের মহাসমাবেশে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনার পর এ নিয়ে নবম দফার অবরোধ শুরু হচ্ছে।

নতুন এ অবরোধের ডাক দিয়েছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

রিজভী বলেন, সরকার পদত্যাগের এক দফা, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল বাতিল, খালেদা জিয়াসহ গ্রেপ্তার নেতাকর্মীদের মুক্তির দাবিতে রোববার সকাল ৬টা থেকে মঙ্গলবার সকাল ৬টা পর্যন্ত ৪৮ ঘণ্টার অবরোধ কর্মসূচি পালিত হবে। সব সমমনা দল ও জোটের নেতাকর্মীরা এই কর্মসূচি সফল করবেন।

এদিকে অবরোধের আগের রাতে ২৭ মিনিটের ব্যবধানে রাজধানী ঢাকায় তিনটি বাসে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। সায়েদাবাদ, গাবতলী টার্মিনাল ও আগারগাঁওয়ে পৃথক ঘটনায় এসব বাসে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে।

এ ছাড়া অবরোধ সমর্থনে রাজধানীতে মশাল মিছিল করেছে বিএনপি নেতাকর্মীরা। শনিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর আগারগাঁও এলাকায় এ মশাল মিছিল বের করা হয়। এতে নেতৃত্ব দেন বিএনপি সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

;

নৌকা প্রার্থীর সভায় বক্তব্য রাখায় বিএনপি নেতা বহিষ্কার

ছবি: সংগৃহীত

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ফেনী-৩ আসনে নৌকার মনোনীত প্রার্থী মোঃ আবুল বাশারের মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখায় দাগনভূঞা উপজেলা বিএনপি নেতা দেলোয়ার হোসেন মিলনকে বহিষ্কার করেছে জেলা বিএনপি।

শনিবার (২ ডিসেম্বর) ফেনী জেলা বিএনপির সদস্য সচিব আলাল উদ্দিন আলাল স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, দলীয় শৃঙ্খলা পরিপন্থি কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার সুষ্পষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে দাগনভূঞা উপজেলা বিএনপির সদস্য দেলোয়ার হোসেন মিলনকে (মিলন মেম্বার) দলের প্রাথমিক সদস্য পদসহ সকল পর্যায়ের পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, গত বৃহস্পতিবার ফেনী-৩ আসনের নৌকার মনোনীত প্রার্থী মোঃ আবুল বাশারের মতবিনিময় সভায় দেলোয়ার হোসেন মিলন অংশগ্রহণ করে বক্তব্য রেখে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ করেন।

ফেনী জেলা বিএনপির সদস্য সচিব আলাল উদ্দিন আলাল বহিষ্কারের তথ্য নিশ্চিত করে জানান, বিএনপি এক তরফা নির্বাচনের বিরুদ্ধে মাঠে আন্দোলনে চালিয়ে যাচ্ছে। সেখানে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ করে মিলন এ ধরনের কর্মকাণ্ডে জড়িত হওয়ায় তাকে বহিষ্কার করা হয়।

;

সংবাদটি প্রথম প্রকাশিত হয় বার্তা ২৪-এ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *