আন্তর্জাতিক

সরকারের দীর্ঘ পরিকল্পনা ও উদ্যোগের ফল জলবায়ু তহবিল

ডেস্ক রিপোর্ট:  

এশিয়ায় প্রথমবারের মতো উন্নয়ন সহযোগীরা একত্রিত হয়ে বাংলাদেশকে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব প্রশমন ও মানিয়ে নিতে সাহায্য করার জন্য ৮ বিলিয়ন ডলারের তহবিল ঘোষণা করেছে। আর এই সম্মিলিত তহবিল প্রদান করা হবে আইএমএফের নেতৃত্ব ও তত্ত্বাবধানে।

আইএমএফের এমডি ক্রিস্টালিনা জর্জিয়েভা এক বিবৃতিতে বলেছেন, “অরক্ষিত দেশগুলোর জন্য জলবায়ু পরিবর্তনের উচ্চতর ঝুঁকি সম্পর্কে সতর্ক করার পাশাপাশি প্রয়োজনে তাদের সহায়তার জন্য আন্তর্জাতিক সহযোগিতার গুরুত্বের ওপর জোর দিয়েছিল বাংলাদেশ।” দেশটি জলবায়ু স্থিতিস্থাপকতা, অভিযোজন, প্রস্তুতি এবং সংরক্ষণকে শক্তিশালী করার জন্য উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি করেছে, তিনি দুবাইতে অনুষ্ঠিত কপ২৮ এর সাইডলাইনে প্রকাশিত একটি বিবৃতিতে বলেছেন, “আমরা বাংলাদেশের জলবায়ু এজেন্ডার দৃঢ় বাস্তবায়ন এবং জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় বিশ্বব্যাপী সম্মিলিত পদক্ষেপের প্রচারে অক্লান্ত প্রচেষ্টার প্রশংসা করি।”

বিশ্বব্যাংক গ্রুপের প্রেসিডেন্ট অজয় বাঙ্গা বলেন, “জলবায়ু ঝুঁকি বৃদ্ধি বাংলাদেশের লাখ লাখ মানুষের জীবন ও জীবিকাকে প্রভাবিত করছে। দেশটি দুর্যোগ প্রস্তুতি এবং অভিযোজনে নেতৃত্ব প্রদর্শন করেছে। আজকের ঘোষণা আবারও জলবায়ু চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় আন্তর্জাতিক ও স্থানীয় অংশীদারদের সঙ্গে সহযোগিতার ক্ষেত্রে বাংলাদেশের দৃঢ় প্রতিশ্রুতি দেখায়। এর প্রয়োজনীয়তা অনেক বেশি, এবং আমাদের সকলকে জ্ঞান ভাগ করে নেওয়ার জন্য এবং জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবের জন্য সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলিকে অর্থায়ন প্রদানের জন্য একসাথে কাজ করতে হবে।”

এডিবি প্রেসিডেন্ট মাসাতসুগু আসাকাওয়া বলেছেন, “জলবায়ু ঝুঁকি বাড়ছে এবং এটি মোকাবেলায় প্রগতিশীল পদক্ষেপ এবং শক্তিশালী অংশীদারত্ব প্রয়োজন। প্রতিশ্রুতি এবং নেতৃত্বের সাথে বাংলাদেশ তার জলবায়ু এজেন্ডাকে এগিয়ে নিতে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি করেছে। এনসিইসিসি জলবায়ু এজেন্ডাকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য একটি সম্পূর্ণ-সরকারের দৃষ্টিভঙ্গি তৈরি করবে এবং বাংলাদেশ জলবায়ু ও উন্নয়ন অংশীদারত্ব বাংলাদেশকে বর্ধিত ও সমন্বিত সহায়তার সুবিধা দেবে। এডিবি জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে বাংলাদেশকে সহায়তা দিতে সকল উন্নয়ন সহযোগীদের সাথে কাজ করতে দৃঢ় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।”

জলবায়ু খাতে বাংলাদেশের উন্নয়ন সহযোগীরা

বাংলাদেশ জলবায়ু ও উন্নয়ন প্ল্যাটফর্মের (বিসিডিপি) জন্য যে উন্নয়ন সহযোগীরা একত্রিত হয়েছে তারা হলো— এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক (এডিবি); বিশ্বব্যাংক; ইন্টারন্যাশনাল ফাইন্যান্স কর্পোরেশন (আইএফসি); বহুপাক্ষিক বিনিয়োগ গ্যারান্টি এজেন্সি (এমআইজিএ); এশিয়ান ইনফ্রাস্ট্রাকচার ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংক (এআইআইবি); এজেন্স ফ্রান্স ডি ডেভেলপমেন্ট (এএফডি); ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং ইউরোপীয় বিনিয়োগ ব্যাংক (ইআইবি), টিম ইউরোপের অংশ হিসাবে; সবুজ জলবায়ু তহবিল (জিসিএফ), দক্ষিণ কোরিয়া সরকার; জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সি (জাইকা), স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক এবং ইউ.কে।

জলবায়ু খাতে বাংলাদেশের হুমকিসমূহ

সাম্প্রতিক দশকগুলিতে বাংলাদেশে চরম জলবায়ু প্রভাব বিস্তারকারী ঘটনাগুলো ঘন ঘন ঘটছে এবং তীব্রতা উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। গড় তাপমাত্রা প্রতি দশকে ০.২০ ডিগ্রি সেলসিয়াস হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। ২০২০-২০২১ বছরে বার্ষিক বৃষ্টিপাতের ১৫৩ মিমি বৃদ্ধির পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছিল, এবং পরবর্তী গবেষণায় শীতকাল বাদে তিনটি ঋতুতে ক্রমবর্ধমান প্রবণতা পাওয়া গেছে, যা শীতল এবং শুষ্ক হয়ে উঠছে, যখন বছরের বাকি সময় উষ্ণ এবং আর্দ্র হচ্ছে।

বাংলাদেশের উপকূলীয় এবং নদী উপকূলীয় সম্প্রদায়গুলো তাদের কম অভিযোজিত ক্ষমতা এবং প্রাকৃতিক দুর্যোগের সরাসরি সংস্পর্শে আসার কারণে অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। নদীতীর ক্ষয় এবং অন্যান্য জলবায়ুগত বিপত্তি এই সম্প্রদায়ের জীবন ও জীবিকাকে প্রভাবিত করেছে।  এই বিপদের কারণে অনেক লোক তাদের পরিবারকে পুনর্বাসিত করেছে, এবং জলবায়ু-প্ররোচিত অভ্যন্তরীণভাবে বাস্তুচ্যুত বেশিরভাগ লোককে চর জমিতে স্থানান্তরিত করা হচ্ছে- মূল ভূখণ্ড থেকে বিচ্ছিন্ন দ্বীপ এবং পার্শ্ববর্তী নদী দ্বারা বেষ্টিত। বেশ কিছু গবেষণায় দেখা গেছে যে, চরের জমিতে বসবাসকারী জনগোষ্ঠী জলবায়ু পরিবর্তনের সবচেয়ে ঝুঁকি প্রদর্শন করে। চরের জমিতে বসবাসকারী লোকেরা একাধিক প্রাকৃতিক দুর্যোগ এবং আর্থ-সামাজিক দুর্বলতার সম্মুখীন হয় যা তাদের এক চর থেকে অন্য চরে স্থানান্তরিত করতে বাধ্য করে।

সমুদ্র স্তর বৃদ্ধি

তাপমাত্রা বৃদ্ধি, অনিয়মতান্ত্রিক বৃষ্টিপাত, নদীর নাব্যতা সব কিছু পরেও জলবায়ুগত যে প্রভাবটা বাংলাদেশের জন্য সবচেয়ে হুমকি হয়ে দেখা দেবে সেটা হচ্ছে সমুদের স্তর বৃদ্ধি।  স্যাটেলাইট ব্যবহার করে এসএলআর প্রক্ষেপণের উপর পরিবেশ অধিদপ্তর দ্বারা পরিচালিত একটি সাম্প্রতিক গবেষণা অলটাইমেট্রি ডেটা দেখায় যে বাংলাদেশের উপকূলীয় অঞ্চলে গড় সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা গত ৩০ বছরে ৩.৮-৫.৮ মিমি/বছর করে বেড়েছে। সমীক্ষাটি আরও দেখায় যে আগামী ১ শতাব্দীতে প্রায় ১২.৩৪%-১৭.৯৫% উপকূলীয় অঞ্চল সমুদ্র স্তর বৃদ্ধি (এসএলআর)-র কারণে তলিয়ে যাবে। অনুসন্ধানগুলি আরও দেখায় যে ৫.৮%-৯.১% ধান উৎপাদন হ্রাসের জন্য এসএলআর দায়ী হবে।

জলবায়ু খাতে বাংলাদেশের গৃহীত জাতীয় নীতিসমূহ হচ্ছে — Bangladesh Climate Change Strategy and Action Plan (BCCSAP), 2009; National Adaptation Programme of Action, 2005, updated in 2009; Bangladesh Climate Change Trust Act, 2010; Nationally Determined Contributions (NDC), 2015, Enhanced & Updated in 2021; NDC Implementation Road Map, 2018; Bangladesh Delta Plan, 2100; Mujib Climate Prosperity Plan 2030 (Draft); National Disaster Management Policy, 2015; Standing Orders on Disaster 2019; Plan of Action to Implement Sendai Framework for Disaster Risk Reduction 2015-2030; National Strategy on Internal Displacement Management 2021; National Plan for Disaster Management 2021-2025; Bangladesh Energy Efficiency and Conservation Master Plan up to 2030; Renewable Energy Policy of Bangladesh, 2008; Bangladesh National Action Plan for Reducing SLCPs, 2012, Updated in 2018

 বাংলাদেশের নিজস্ব তহবিল থেকে গৃহীত পদক্ষেপসমূহ

বাংলাদেশ সরকার ২০০৯-১০ অর্থবছরে প্রথমবারের মতো নিজস্ব তহবিল থেকে বাংলাদেশ ক্লাইমেট চেঞ্জ ফান্ড গঠন করে। এটা ছিল অনুন্নত দেশগুলোর মধ্যে প্রথম কোন দেশ যারা জলবায়ু খাতে এমন পদক্ষেপ নিয়েছিল। এ পর্যন্ত বাংলাদেশ ক্লাইমেট চেঞ্জ ফান্ড ৮০০’র মতো প্রকল্প গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করেছে, যা সরাসরি জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব থেকে রক্ষাকল্পে গৃহীত হয়েছে। এই ১৪ বছরে বাংলাদেশ ৪৮০ মিলিয়ন ইউএস ডলার এই খাতে খরচ করে যার মধ্যে রয়েছে অভিযোজন, প্রশমন এবং জলবায়ু পরিবর্তন গবেষণা।

জলবায়ু পরিবর্তন সহনশীলতার লক্ষ্যে অভিযোজন প্রকল্প সমূহ

৩৫২.১২ কিলোমিটার বাঁধ নির্মাণ; ৫৯০.৬০ কিমি খাল খনন/পুনঃখনন; ৮২টি পানি নিয়ন্ত্রণ পরিকাঠামো/বাঁধ স্লুইসগেট নির্মাণ; ১৪টি স্কুল কাম সাইক্লোন শেল্টার নির্মাণ; ১৪ হাজার ২৫০ জন স্বেচ্ছাসেবক এবং উপকূলীয় জেলেকে ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচি প্রশিক্ষণ; ১৯ হাজার ৪২৮ মেট্রিক টন চাপ সহনশীল বীজ উৎপাদন এবং বিতরণ; ৮ হাজার ৫২৯টি জলবায়ু সহনশীল ঘর নির্মাণ; ২ হাজার ৪৫১টি পানি পরিশোধন সৌর প্ল্যান্ট স্থাপন; ২১০ গ্রামে ১২ হাজার ৯০০টি ভাসমান সবজির বিছানা; ৩টি রাবার ড্যাম নির্মিত এবং ২টি স্পার পুনর্গঠিত; ৯০ কিমি নদী-তীর প্রতিরক্ষামূলক কাজ সম্পন্ন; ১৮টি নিয়ন্ত্রক, ১৬টি আউটলেট এবং ১২টি খাঁড়ি নির্মাণ; ২০০.৬৪ কিলোমিটার রাস্তা নির্মাণ; ১২৮.৭ কিমি নিষ্কাশন ব্যবস্থা তৈরি; ৪ হাজার ১৮৪টি গভীর নলকূপ স্থাপন।

জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব প্রশমন প্রকল্পসমূহ

৭১.১৪৬ মিলিয়ন গাছ লাগানো হয়েছে; ৬ হাজার ৯২১.৭ হেক্টর বনভূমি বনায়নের আওতায় আনা হয়েছে; ৬ হাজার উদ্যোক্তার মাঝে ৯ লক্ষ  উন্নত রান্নার চুলা বিতরণ; ১০ হাজার ৯০৮ সোলার হোম সিস্টেম বিতরণ করা হয়েছে; অফ-গ্রিড এলাকায় ২টি সোলার মিনি-গ্রিড প্ল্যান্ট রিমোটে ইন্সটল করা হয়েছে; ১ হাজার ৭৫১টি সোলার স্ট্রিটলাইট স্থাপন করা হয়েছে; ২ হাজার ৪৫১টি সোলার ওয়াটার পিউরিফায়ার স্থাপন করা হয়েছে; ১৩টি সৌর সেচ পাম্প বসানো হয়েছে; ৭ হাজার ৯০১টি বায়োগ্যাস প্ল্যান্ট গৃহস্থালিতে স্থাপন করা হয়েছে, এবং ১৩টি কমিউনিটি বায়োগ্যাস প্ল্যান্ট স্থাপন করা হয়েছে।

জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় গবেষণাসমূহ হচ্ছে—১২ ধরনের চাপ এবং তাপ সহনশীল ফসলের জাত উদ্ভাবন ও আধুনিক সফটওয়্যার ব্যবহার করে বন ব্যবস্থাপনা, হার্ডওয়্যার এবং অন্যান্য সরঞ্জাম স্থাপন সম্পন্ন

জলবায়ু পরিবর্তন খাতে এই পর্যন্ত প্রাপ্ত সহায়তাসমূহ

২০০৯-১০ সাল থেকে বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তন খাতে নীতি প্রণয়ন সহ গবেষণা ও প্রকল্প উন্নয়ন লক্ষ্যে নিজস্ব তহবিল থেকে অর্থ বরাদ্দ দিয়ে আসছে। এই খাতে কিছু আন্তর্জাতিক সংস্থা থেকে অনুদান যেমন পেয়েছে, তেমনি ঋণও নিয়েছে বাংলাদেশ।

গ্রিন ক্লাইমেট ফান্ড (জিসিএফ) থেকে ৫টি প্রকল্পে ১০১.১৪ মিলিয়ন দলা অনুদান এবং ২৫০ মিলিয়ন ডলার ঋণ; স্বল্পোন্নত দেশ তহবিল (এলডিসিএফ) থেকে ৭টি প্রকল্পে ৩৪.৪১ মিলিয়ন ডলারের অনুদান; অভিযোজন তহবিল (এএফ) থেকে ১টি প্রকল্পে ৯.৯৯ মিলিয়ন ডলারের অনুদান; গ্লোবাল এনভায়রনমেন্ট ফ্যাসিলিটি (জিইএফ) থেকে ৮টি প্রকল্পে ২৪.৬৬ মিলিয়ন ডলার অনুদান; এবং ক্লাইমেট ব্রিজ ফান্ড থেকে ৩০ মিলিয়ন ডলারের অনুদান। মোট ২০০.২০ মিলিয়ন ডলারের অনুদান এবং ২৫০ মিলিয়ন ডলারের ঋণের সাথে এইসকল আন্তর্জাতিক সংস্থা ৭৪৭.২২ মিলিয়ন ডলারের সহ-অর্থায়ন করেছে।

দুবাইয়ে অনুষ্ঠিত কপ২৮ সামিটে বাংলাদেশ হঠাৎ করেই জলবায়ু খাতে এই ৮ বিলিয়ন ডলার পায়নি, গত জানুয়ারিতে জলবায়ু পরিবর্তন ও সহনশীলতা সৃষ্টির লক্ষ্যে যে প্রকল্পসমূহ এডিবিতে জমা দেওয়া হয়েছে সেটারই ফল প্রকাশিত হলো ৩ ডিসেম্বর এই তহবিল ঘোষণার মাধ্যমে। শেখ হাসিনা সরকারের দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকেই বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় কাজ করে যাচ্ছে। এই লক্ষ্যে বিজ্ঞ পরিবেশবিদদের সাথে দিয়ে দিনের পর দিন সেমিনার, সভা, কনফারেন্স করার পর সেই পরামর্শ মোতাবেক নীতি প্রণয়ন, সেই নীতির অধীনে প্রকল্প গ্রহণ ও বাস্তবায়ন, সেই লক্ষ্যে অর্থের সংস্থান এই সবই হয়েছে পরিকল্পিত উপায়ে সুনির্দিষ্ট লক্ষ্যকে সামনে রেখে।

দীর্ঘদিনের লাগাতার পরিশ্রমের ফসল হচ্ছে এডিবির এই জলবায়ু তহবিল, এবং একইসঙ্গে এটি নতুন এক চ্যালেঞ্জও। আগামীদিনের উপকুল সংশ্লিষ্ট এবং কৃষি সংশ্লিষ্ট প্রকল্পগুলো হয়তো এই তহবিলের কল্যাণে বিশাল সফলতা দেখাতে যাচ্ছে।

সংবাদটি প্রথম প্রকাশিত হয় বার্তা ২৪-এ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *