সারাদেশ

বগুড়ায় যুবককে কুপিয়ে হত্যা

ডেস্ক রিপোর্ট: বগুড়ায় যুবককে কুপিয়ে হত্যা

ছবি: সংগৃহীত

বগুড়া শহরের নামাজগড় এলাকায় আরিফ হোসেন (৩২) নামের এক যুবককে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

মঙ্গলবার (৫ ডিসেম্বর) রাত পৌনে ১১ টার দিকে নামাজগড় সুলতানগঞ্জ সড়কে এ হত্যাকণ্ড ঘটে। নিহত আরিফ হোসেন বগুড়া পৌরসভার ১৬ নং ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর জহুরুল ইসলামের ছেলে। তিনি নামাজগড় সংলগ্ন গোয়ালগাড়ি এলাকায় ভাড়া বাড়িতে বসবাস করতেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আরিফ পায়ে হেঁটে গলির সড়ক দিয়ে বাসার দিকে যাচ্ছিলেন। মটরসাইকেলে আসা দুর্বৃত্তরা তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে গলা ও হাতে কুপিয়ে দুইটি মটরসাইকেলে চারজন এবং অপর দুইজন দৌড়ে গলিপথ দিয়ে দ্রুত পালিয়ে যায়। আরিফ কিছুদূর দৌড়ে এসে পড়ে যায়।

পরে তাকে উদ্ধার করে বগুড়া শহিদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনার পরপরই পুলিশ ওই এলাকায় তল্লাশি করে ড্রেন থেকে একটি হাসুয়া উদ্ধার করে।

বগুড়া সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইহান ওলিউল্লাহ বলেন তাৎক্ষণিকভাবে বিস্তারিত কিছু জানা যায়নি। পুলিশের একাধিক টিম মাঠে নেমেছে জড়িতদের শনাক্ত করতে।

৬ ডিসেম্বর: লালমনিরহাট মুক্ত দিবস

৬ ডিসেম্বর, সীমান্তবর্তী লালমনিরহাট মুক্ত দিবস

আজ ৬ ডিসেম্বর, সীমান্তবর্তী লালমনিরহাট মুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালের এদিনে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মরণপণ লড়াই আর মুক্তিকামী জনগণের দুর্বার প্রতিরোধে পাক হানাদার বাহিনী পিছু হটে জেলা শহর থেকে।

চূড়ান্ত বিজয়ের পূর্ব মুহূর্তে ৫ ডিসেম্বর মধ‌্য রাতে বীর মুক্তিযোদ্ধারা লালমনিরহাট ঘিরে ফেললে। ৬ ডিসেম্বর ভোর ৬টায় লালমনিরহাট রেলওয়ে স্টেশন থেকে পাক সেনা, রাজাকার আলবদর ও তাদের দোসররা দুটি স্পেশাল ট্রেনে করে রংপুর ক্যান্টনমেন্টে পালিয়ে যায়।

তিস্তা নদী পার হওয়ার পরে পাক সেনারা তিস্তা রেল সেতুতে বোমা বর্ষণ করে। এতে সেতুর মারাত্মক ক্ষতি হয়। লালমনিরহাটে ‘৭১-এর এদিনে সর্বত্রই ছড়িয়ে পড়ে মুক্তির উল্লাস। লালমনিরহাট শত্রুমুক্ত হওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে চারদিক থেকে লোকজন ছুটে আসতে থাকে শহরের দিকে। 

সন্ধ্যার মধ্যে শহরে (বর্তমান মিশন মোড়) এলাকায় লোকে পূর্ণ হয়ে যায়। স্লোগানে মুখরিত হয়ে উঠে শহর ও আশপাশের গ্রাম। আনন্দে উদ্বেলিত কণ্ঠে স্বদেশের পতাকা নিয়ে ছুটোছুটি করতে থাকে তরুণ, যুবক, আবাল বৃদ্ধ বনিতা সবাই। শহরের বিভিন্ন রাস্তায় বের হয় আনন্দ মিছিল।

মুক্তিযুদ্ধের সময় ৬নং সেক্টরের কমান্ডার ছিলেন বিমান বাহিনীর এম খাদেমুল বাশার। ৬ ডিসেম্বর মিত্র বাহিনীর সঙ্গে সর্বস্তরের মানুষ শহরে প্রবেশ করলে স্বাধীন বাংলার পতাকা ওড়ান তিনি।

লালমনিরহাটের একমাত্র বীর প্রতীক প্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা ক্যাপ্টেন (অব.) আজিজুল হকের সাথে কথা হলে অশ্রুসিক্ত নয়নে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচারণ করেন।

অবিস্মরণীয় দিনটি যথাযথভাবে উদ্‌যাপনের জন্য লালমনিরহাটের বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, মুক্তিযোদ্ধা সংগঠন নানা কর্মসূচি হাতে নিয়েছে।

;

চলতি মাসের টিসিবি পণ্য বিক্রি শুরু বুধবার

ছবি: সংগৃহীত

ডিসেম্বর মাসের ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি)র পণ্য বিক্রি কার্যক্রম শুরু হচ্ছে আজ। এ মাসে দেশব্যাপী এক কোটি ফ্যামিলি কার্ডধারী নিম্ন আয়ের পরিবারের মধ্যে ভর্তুকি মূল্যে টিসিবির পণ্য বিক্রি কার্যক্রমে সয়াবিন তেল, মসুর ডাল চিনি ও চালের সঙ্গে পেঁয়াজ যুক্ত করা হয়েছে।

বুধবার (৬ ডিসেম্বর) চলতি মাসের মাসিক কর্মসূচির অংশ হিসেবে ভর্তুকি মূল্যে পণ্য বিক্রি শুরু করবে সরকারি সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি)। বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি  মঙ্গলবার (৫ ডিসেম্বর) রাজধানীর তেজগাঁওয়ে এ কার্যক্রম উদ্বোধন করবেন। টিসিবির এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সার্বিক নির্দেশনায় নিম্ন আয়ের এক কোটি উপকারভোগী কার্ডধারী পরিবারের মধ্যে ভর্তুকি মূল্যে টিসিবির পণ্য (তেল ও ডাল) সাশ্রয়ী মূল্যে বিক্রয় কার্যক্রম চলমান। জুলাই মাস থেকে এ বিক্রি কার্যক্রমে টিসিবি পণ্যের সঙ্গে খাদ্য অধিদপ্তরের (খাদ্য মন্ত্রণালয়) দেওয়া চাল যুক্ত হয়েছে। ডিসেম্বর মাসের বিক্রি কার্যক্রমে সর্বোচ্চ ২ লিটার সয়াবিন তেল, ২ কেজি মসুর ডাল, এক কেজি চিনি ও ৫ কেজি চাল কিনতে পারবেন উপকারভোগীরা। এ ক্ষেত্রে প্রতি লিটার সয়াবিন তেল বা রাইস ব্র্যান তেলের দাম পড়বে ১০০ টাকা, প্রতি কেজি মসুর ডালের দাম ৬০ টাকা এবং প্রতি কেজি চালের দাম পড়বে ৩০ টাকা।

;

বুড়িমারী স্থলবন্দর আধুনিকায়নের উদ্যোগ

ছবি: সংগৃহীত

লালমনিরহাটের বুড়িমারী স্থলবন্দর আধুনিকায়ন করার প্রকল্প হাতে নিয়েছে সরকার। প্রতিষ্ঠার প্রায় ৩৫ বছর পর এ উদ্যোগ হাতে নেওয়া হয়েছে। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে সৃষ্টি হবে কর্মসংস্থান। কমবে যাত্রী ও ব্যবসায়ীদের হয়রানি। ঘটবে আর্থ সামাজিক অবস্থার আমূল পরিবর্তন। বৃদ্ধি পাবে সরকারি রাজস্ব আয়।

বুড়িমারী স্থলবন্দর সূত্রে জানা যায়, ১৯৮৮ সালে ১১ একর ১৫ শতক জমির ওপর বুড়িমারী স্থলবন্দরটি প্রতিষ্ঠার পর থেকে পাসপোর্টধারী যাত্রী ও আমদানি-রফতানিকারকদের সেবা দিয়ে আসছে। বন্দরে একটি প্রশাসনিক ভবন, তিনটি ডিজিটাল স্কেল, একটি ফায়ার হাইড্রেন্ট সিস্টেম ভবন, একটি শ্রমিক বিশ্রামাগার, দুটি ৪০০ টন ধারণ ক্ষমতার শেড, একটি ১ হাজার টন ধারণক্ষমতার শেড, দুটি ট্রান্সশিপমেন্ট শেড ও দুটি ওপেন ইয়ার্ড রয়েছে। কিন্তু জায়গা সংকটের কারণে ব্যবসায়ীরা বিভিন্ন সময় কাঙ্ক্ষিত সেবা পাচ্ছেন না। ব্যবসায়ীরা বিভিন্নভাবে হয়রানির শিকার হচ্ছেন। তবে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে সকল সমস্যার সমাধান হবে।

লালমনিরহাট চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ড্রাস্ট্রিজের সভাপতি শেখ আব্দুল হামিদ বাবু জানান, প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে স্থানীয় পর্যায়ে ব্যাপক কর্মসংস্থান সৃষ্টির পাশাপাশি এ অঞ্চলের আর্থ সামাজিক অবস্থার আমূল পরিবর্তন হবে। বৃদ্ধি পাবে সরকারি রাজস্ব আয়।

বুড়িমারী কাস্টমসের ডেপুটি কমিশনার আব্দুল আলীম বলেন, পাসপোর্টধারী যাত্রী এবং আমদানি-রফতানি কার্যক্রমের যে ভলিয়ম বুড়িমারী স্থলবন্দরের সে তুলনায় সেবার মান নিম্নমুখী। এজন্য সরকার ভূমি অধিগ্রহণের মাধ্যমে সেবার মান নিশ্চিত করার উদ্যোগ নিয়েছে। প্রকল্পটি দ্রুত বাস্তবায়িত হলে সব পক্ষের জন্য সুবিধা হবে।

বুড়িমারী স্থলবন্দরের সহকারী পরিচালক (ট্রাফিক) গিয়াস উদ্দিন জানান, প্রকল্পটি বাস্তবায়নের ফলে আধুনিক পদ্ধতিতে পরিচালিত হবে বুড়িমারী স্থলবন্দরের আমদানি-রফতানি কার্যক্রম ও পাসপোর্টধারী যাত্রী চলাচল। এতে সরকারি রাজস্ব আয় বৃদ্ধি পাবে।

লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ উল্যাহ বলেন, সরকার এ স্থলবন্দরটিকে আধুনিকায়ন করার জন্য বড় প্রকল্প হাতে নিয়েছে। জমি অধিগ্রহণের কাজ এখন শেষ পর্যায়ে।

;

হাসপাতালে পানি সরবরাহ বন্ধ, ভোগান্তিতে রোগীরা

ছবি: সংগৃহীত

ফেনীর সোনাগাজী উপজেলার ৫০ শয্যা বিশিষ্ট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বিগত এক সপ্তাহ যাবত পানি সরবরাহের পাম্প নষ্ট। সংস্কার না হওয়ায় বিগত ৭ দিন ধরে হাসপাতালটিতে বন্ধ রয়েছে পানি সরবরাহ । এতে ভর্তি হওয়া রোগী, তাদের স্বজন এবং ডাক্তার-নার্সরা পড়েছেন চরম ভোগান্তিতে। হাসপাতালে পানি নেই এমন আলোচনায় সরগরম এলাকা। বাধ্য হয়ে রোগীরা আশেপাশের আত্মীয় স্বজনদের বাড়িতে গিয়ে পানির জরুরি প্রয়োজন সারছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে হাসপাতালে পানি ওঠানোর একমাত্র পাম্পটি বৃহস্পতিবার (৩০ নভেম্বর) থেকে নষ্ট হয়ে যায়। এতে হাসপাতালে পানি সরবরাহ বন্ধ থাকায় রোগী এবং তাদের স্বজনরা বিপাকে পড়েছেন। পানির সংকটে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রোগীদের গোসল করা এবং শৌচাগার এ যাওয়া কষ্টসাধ্য হয়ে পড়েছে।

স্থানীয়রা জানায়, পানি না থাকায় রোগী ও তাদের স্বজনরা বাইরের দোকান, পুকুর ও টিউবওয়েলের পানি নিয়ে আসছেন। পানি সংকটে শৌচাগারে পানি ব্যবহার কম হওয়ায় ছড়াচ্ছে দুর্গন্ধ।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রাব্বী মজুমদার নামে এক রোগীর স্বজন বলেন, গত কয়েকদিন দিন ধরে এখানে ভর্তি আছি। রোগীকে ভালো করতে এসে মনে হচ্ছে আমরাও অসুস্থ হয়ে যাব। বাইরে থেকে পানি এনে চলা যায় না। আমাদের দুর্ভোগের শেষ নেই।

হাসপাতালে ভর্তিকৃত রোগীরা বলেন, পানি ছাড়া হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা নেয়া যায় না। বাধ্য হয়ে বাইরে গিয়ে এক আত্মীয়ের বাসা থেকে গোসল করে আসতে হচ্ছে। নিরুপায় হয়ে এখানে পড়ে আছি।

বিবি কুলসুম নামে একজন বলেন, এ যেন বেহাল দশা, রোগীর সেবা যত্ন করতে এসে অন্যরাও রোগী হয়ে যাচ্ছেন। ৭ দিন যাবত সমস্যা সমাধান না হওয়া দুঃখজনক। রোগীদের স্বার্থে দ্রুত সমাধান করা উচিত।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. উৎপল দাস বলেন, পানির পাম্পটি নষ্ট হয়ে যাওয়াতে এ সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে। এবিষয়ে কর্তৃপক্ষকে চিঠি দিয়ে জানানো হয়েছে। স্বাস্থ্য প্রকৌশল বিভাগের প্রকৌশলী দুইবার ইতোমধ্যে এসেছেন কিন্তু পাম্প ঠিক হয়নি। দ্রুত সমস্যা সমাধানের চেষ্টা চলছে বলে জানান তিনি।

সোনাগাজী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জহির উদ্দিন মাহমুদ লিপটন বলেন, এ বিষয়ে ইতোমধ্যে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার সাথে কথা হয়েছে। সমস্যা সমাধানে কাজ চলছে। দ্রুত সমস্যা সমাধান হবে বলে জানান তিনি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) কামরুল হাসান বলেন, হাসপাতালের পানির সমস্যার বিষয়টি আমি অবগত ছিলাম না। স্বাস্থ্য কর্মকর্তার সাথে কথা বলে পানির সমস্যা সমাধানের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

;

সংবাদটি প্রথম প্রকাশিত হয় বার্তা ২৪-এ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *