বিনোদন

‘অ্যানিমেল’ সহ্য করতে পারলেন না সাংসদ কন্যা

ডেস্ক রিপোর্টঃ বিশ্বব্যাপী বক্স অফিসে রীতিমত তাণ্ডব চালাচ্ছে বলিউড সিনেমা ‘অ্যানিমেল’। কোটি কোটি টাকা আয় করলেও ছবিটি নিয়ে সমান তালে হচ্ছে সমালোচনা। এই সিনেমায় অত্যধিক যৌনতা, নারী অবমাননাকারী সংলাপ আর নৃশংস অ্যাকশন দৃশ্যের জন্য ইতোমধ্যে নিন্দা জানিয়েছেন অনেকে। এরইমধ্যে ছবিটি নিয়ে সোচ্চার হলেন ভারতের ছত্তিশগড়ের সাংসদ রঞ্জিত রঞ্জন।

ভারতের নয়াদিল্লিতে চলমান রাজ্যসভার শীতকালীন সংসদ অধিবেশনে ‘অ-বিধায়ক বিষয়গুলি’র আলোচনার সময় সাংসদ রঞ্জিত ‘অ্যানিম্যাল’-এর নিন্দা করেন। এসময় তিনি সোচ্চার কণ্ঠে দাবি করেন, ‘অ্যানিমেল’ ছবিতে দেখানো হিংস্রতা ভারতীয় সমাজে খারাপ প্রভাব ফেলতে পারে।

‘অ্যানিমেল’ ছবিতে রণবীর কাপুর 

‘অ্যানিমেল’ ছবিতে নারীর প্রতি অসম্মানের মতো ভয়াবহ চিত্র ফুটিয়ে তোলা হয়েছে বলেও মন্তব্য করেন রঞ্জিত। এসময় তিনি নিজের মেয়ের ‘অ্যানিমেল’ দেখার অনুভূতিও শেয়ার করেন। তিনি জানান, তার মেয়ে এবং তার বিশ্ববিদ্যালয়ের বন্ধুরা ‘অ্যানিম্যাল’ দেখতে বসে ‘নারীর প্রতি অসম্মান’ দেখে কান্নায় ভেঙে পড়েন। এবং সিনেমা হল ছেড়ে চলে যান।

এসময় কবীর সিং, পুষ্পা এবং অ্যানিমেল এর মতো সিনেমা নির্মাণের সমালোচনা করে রঞ্জিত বলেন, ‘বলিউড যেটাকে ন্যায্যতা দিচ্ছে সেটা ভীতিকর। ‘কবীর সিং’ ছবিতে প্রধান অভিনেতা তার প্রেমিকার সঙ্গে যেভাবে আচরণ করেন, এবং এখন দেখুন ‘অ্যানিম্যাল’-এ অভিনেতা তার স্ত্রীর সঙ্গে কেমন আচরণ করছে। তারা তাদের সিনেমার মাধ্যমে এই হিংস্রতাকে ন্যায্যতা দিচ্ছে’। এসময় এ বিষয়গুলোকে ভারতীয় সমাজের জন্য নেতিবাচক বলেও মন দেন তিনি।

এসব বিষয়কে ছোট করে দেখার অবকাশ নেই বলেও মন্তব্য রঞ্জিতের। তার দাবি, সিনেমায় দেখানো এসব বিষয় সরাসরি তরুণদের উপর প্রভাব ফেলে।

‘অ্যানিমেল’ ছবিতে রণবীর কাপুর ও রাশমিকা মান্দানা

ভারতে সাম্প্রতিক ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরোর (এনসিআরবি) বার্ষিক প্রতিবেদনে নারীর বিরুদ্ধে অপরাধের ভয়াবহতা প্রকাশ পেয়েছে। ২০২২ সালে নথিভুক্ত তথ্যকে বিষ্ময়কর বলছেন বিশেষজ্ঞরা। সেখানে দেখা গেছে যে প্রতি ঘণ্টায় প্রায় ৫১টি এফআইআর নিবন্ধিত হচ্ছে। ভারতীয় দণ্ডবিধির (আইপিসি) অধীনে নারীদের বিরুদ্ধে বেশিরভাগ অপরাধ ছিল স্বামী বা তার আত্মীয়দের দ্বারা।
তথ্যসূত্র : ইন্ডিয়াটিভি নিউজ

সংবাদটি প্রথম প্রকাশিত হয় বার্তা ২৪ এ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *