সারাদেশ

নৌকার প্রচারণায় নামল ফেনীর ক্রীড়াবিদরা

ডেস্ক রিপোর্ট: বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় আসা মানে দুর্নীতি, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ আর দুঃশাসন বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সভাপতি এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

মঙ্গলবার (২ জানুয়ারি) বিকালে সরকারি রাজেন্দ্র কলেজ মাঠে আওয়ামী লীগের নির্বাচনি সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী একথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় আসা মানে দুর্নীতি, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ আর দুঃশাসন। এই দুঃশাসনে দেশ অচল হয়ে যায়। আসে ইমার্জেন্সি। যদিও আমি বিরোধী দলের নেত্রী, আমার আগে গ্রেফতার করে। আমি জাতির পিতার কন্যা, আমি কারো কাছে মাথানত করি না। গ্যাস বিক্রির মুচলেকা দিয়ে খালেদা জিয়া ক্ষমতায় এসেছিল, আমি গ্যাস বিক্রি করতে চাইনি বলেই ষড়যন্ত্র করে আমাকে আসতে দেয়নি।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, একটি বিধ্বস্ত দেশ, ২৪ বছরের পাকিস্তানি শোষণ, ২০০ বছরের ব্রিটিশ উপনিবেশিকদের শোষণ, শাসন। তার মধ্যে যুদ্ধে বিধ্বস্ত দেশ। তিনি মাত্র তিন বছর ৭ সাত মাসের মধ্যে স্বল্পোন্নত দেশ হিসেবে জাতিসংঘ স্বীকৃত দেয়। পৃথিবীর আর অন্য কোনো দেশ পারেনি। একমাত্র বাংলাদেশ পেয়েছিল বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে। তার স্বপ্ন ছিল দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটাবে। আর কোনো মানুষ ভূমিহীন থাকবে না, দরিদ্র থাকবে না, কোনো মানুষ চিকিৎসাহীন থাকবে না।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘যে আদর্শ নিয়ে জাতির পিতা দেশ স্বাধীন করেছেন, মুক্তিযুদ্ধের সে চেতনা ও আদর্শকে সমুন্নত রেখে বাংলাদেশের উন্নয়ন করবো। আপনাদের প্রতি আমার কৃতজ্ঞতা, আমার কৃতজ্ঞতা আওয়ামী লীগের কর্মীদের প্রতি, যে আমাকে তারা সব সময় সহযোগিতা করেছেন। নৌকা মার্কায় ভোট দিয়েছেন বলেই দেশের সরকার গঠন করে সেবা করার সুযোগ পেয়েছি।’

তিনি বলেন, বিদ্যুৎ নাই, পানি নাই, দেশের মানুষের শিক্ষা নাই, চিকিৎসা নাই। প্রথমবার সরকারে এসেই সর্বপ্রথম খাদ্য নিরাপত্তা, খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধি করি। দেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়। বিদ্যুৎ উৎপাদন ১৬শ মেগাওয়াট ছিল, সেই বিদ্যুৎ ৪ হাজার মেগাওয়াটে উন্নীত করি। স্বাক্ষরতার হার ৪৫ ভাগ ৬৫ ভাগে উন্নীত করি। আমরা সব ধরনের প্রচেষ্টা চালাই দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবার জন্য। মানুষের জীবনে স্বস্তি ফিরে আসে। কিন্তু সে সুখ বেশি দিন টিকে নাই। এরপর বিএনপি ক্ষমতায় আসে।

সংবাদটি প্রথম প্রকাশিত হয় বার্তা ২৪-এ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *