সারাদেশ

বরিশালে রেকর্ড ২৩ লাখ টন আমন ধান ঘরে তুললেন কৃষকরা

ডেস্ক রিপোর্ট: বরিশালে রেকর্ড ২৩ লাখ টন আমন ধান ঘরে তুললেন কৃষকরা

ফাইল ছবি

তিন দফায় প্রাকৃতিক বিপর্যয় কাটিয়ে অতীতের সব রেকর্ড অতিক্রম করে বরিশাল অঞ্চলের কৃষরা এবার প্রায় ২৩ লাখ টন আমন ধান ঘরে তুলেছেন। তবে গত বছরের তুলনায় ভাল দাম না পাওয়ার অভিযোগ কৃষকদের। অথচ বাজারে চালের দাম গত বছরের এ সময়ের তুলনায় অন্তত ২০ ভাগ বেশি। বরিশাল কৃষি অঞ্চলে সদ্য সমাপ্ত ‘খরিপ-২’ মৌসুমে ৮ লাখ ৬৯ হাজার ৫৯৩ হেক্টরে আবাদ লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে কৃষিযোদ্ধারা ৮ লাখ ৮০ হাজার ৮৪৫ হেক্টরে আবাদ সম্পন্ন করেন।

যা ছিল লক্ষ্যমাত্রার প্রায় সাড়ে ১১ হাজার হেক্টর অতিরিক্ত। কিন্তু এ বাড়তি জমিতে আমনের আবাদ হলেও বঙ্গোপসাগর থেকে ধেয়ে আসা একের পর এক ঘূর্ণিঝড় বারবারই বিপর্যয় ডেকে আনে। তবে সব বাঁধা অতিক্রম করে সদ্য সমাপ্ত খরিপ-২ মৌসুমে ২২ লাখ ৮ হাজার ৫৫০ টন উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রার প্রায় ৭৩ হাজার টন অতিরিক্ত ২২ লাখ ৮১ হাজার ২১২ টন আমন চাল ঘরে তুলতে সক্ষম হয়েছেন বরিশাল অঞ্চলের কৃষকরা।

গত বছর বরিশালে প্রতিমণ আমন ধান ১ হাজার থেকে ১২শ টাকায় বিক্রি হয়েছে। গেলো বছর এসময়ে যে চালের কেজি ছিল ৪৫ টাকা, তা এখন ৫০ টাকার ওপরে। ভাল-মধ্যম মানের মিনিকেট চালের কেজি এখন ৬৫-৬৮ টাকা কেজি। বোরো মৌসুমেও ধানের দাম না বাড়লেও কৃষকের জমির ধান ফড়িয়াদের হাতে যাবার পরেই চালের দাম প্রতি কেজিতে ৫-১০ টাকা পর্যন্ত বৃদ্ধি পায়। আমন মৌসুমেও তার ব্যতিক্রম ঘটছে না। অথচ প্রতিবছরই ধানের উৎপাদন ব্যয় বাড়ছে। কিন্তু বাড়ছেনা কৃষকের মাথার ঘাম পায়ে ফেলে উৎপাদন করা ধানের দাম।

অপরদিকে এখনো বরিশাল অঞ্চলে আমনে হাইব্রীড জাতের ধানের অবাদ খুবই সীমিত। সদ্য সমাপ্ত খরিপ-২ মৌসুমে এ অঞ্চলে আবাদকৃত প্রায় ৮ লাখ ৮১ হাজার হেক্টরের মধ্যে হাইব্রীড জাতের ধান ছিল ২৫ হাজার হেক্টরেরও কম। এমনকি এ অঞ্চলে এখনো ৩ লক্ষাধিক হেক্টরে সনাতন স্থানীয় জাতের আমনের আবাদ হচ্ছে। যার হেক্টরপ্রতি গড় ফলন মাত্র ১.৭৩ টনের মত। এমনকি হাইব্রীড জাতের উৎপাদনও ৪ টনের নিচে । অথচ ‘ব্রি’ উদ্ভাবিত আমাদের জলবায়ু উপযোগী হাইব্রীড জাতের বীজ সহ আবাদ প্রযুক্তি অনুসরণ করলে এ অঞ্চলেও হেক্টর প্রতি উৎপাদন অনায়াসেই সাড়ে ৪ টনেরও বেশি হতে পারে বলে মনে করছেন মাঠ পর্যায়ের কৃষিবীদরা। পাশাপাশি সদ্য সমাপ্ত মৌসুমে এ অঞ্চলে যে প্রায় সাড়ে ৫ লাখ হেক্টরে উচ্চ ফলনশীল-উফশী জাতের আমন আবাদ হয়েছে, তার গড় উৎপাদনও ২.৮৯ টন হলেও ভালমানের বীজ ও উন্নত প্রযুক্তি অনুসরণ করে তা খুব সহজেই সোয়া ৩টনে উন্নীত করা সম্ভব বলে মনে করছেন মহলটি।

বরিশাল অঞ্চলে প্রধান দানাদার খাদ্য ফসল আমনের আবাদ ও উৎপাদনে এখনো পুরোটাই প্রকৃতি নির্ভর। ক্রমাগত জলবায়ু পরিবর্তন এ অঞ্চলের প্রধান দানাদার খাদ্য ফসলের জন্য বড় হুমকি হয়ে উঠছে। গত ২৪ অক্টোবর ঘূর্ণিঝড় ‘হামুন’এর মাঝারী বর্ষণে আমনের কোন ক্ষতি না হলেও ১৭ নভেম্বর ঘূর্ণিঝড় ‘মিধিলি’ প্রায় ৭৫ কিলোমিটার বেগে বরিশাল উপকূলে আছড়ে পড়ায় আমনের যথেষ্ট ক্ষতি হয়েছে। ওই ঝড়ের প্রভাবে মাত্র ১২ ঘণ্টায় বরিশালে ২শ মিলি বৃষ্টি হয়েছিল। এর ২২ দিনের মাথায় ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে আরেক ঘূর্ণিঝড় ‘মিগজাউম’ বরিশাল উপকূল থেকে সাড়ে ১২শ কিলোমিটার দূরে ভারতের অন্ধ্র উপকূলে আঘাত হানলেও এর প্রভাবে টানা ৫ দিনের মেঘলা আবহাওয়ার সাথে অগ্রহায়ণের হালকা থেকে মাঝারী বৃষ্টিপাত আমনের আগের ক্ষতিকে আরো তরান্বিত করে বলে মাঠ পর্যায়ের কৃষিবীদরা জানিয়েছেন।

তবে সব প্রতিকূলতা অতিক্রম করেই এবার বরিশাল অঞ্চলের কৃষিযোদ্ধারা লক্ষ্যমাত্রা অতিক্রম করে প্রায় ২৩ লাখ টন আমন ধান ঘরে তুলতে সক্ষম হয়েছেন বলে জানিয়েছেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের বরিশাল অঞ্চল।

চট্টগ্রামে থেকে উড্ডয়নের ২ ঘণ্টা পর ফিরে এলো শারজাহগামী ফ্লাইট

ফাইল ছবি

চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে উড্ডয়নের প্রায় দুই ঘণ্টা পর যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে শারজাহগামী এয়ার অ্যারাবিয়ার একটি ফ্লাইট পুনরায় ফিরে এসে অবতরণ করেছে। ওই ফ্লাইটটিতে ১৪৯ জন যাত্রী ছিল।

শনিবার (২৭ জানুয়ারি) রাত ৯টা ৩৭ মিনিটে ফ্লাইটটি চট্টগ্রাম বিমানবন্দরে অবতরণ করে। এর আগে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে শারজাহর উদ্দেশ্যে বিমানবন্দর ত্যাগ করেছিল।

রাত ১১টার দিকে বার্তা২৪.কমকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন চট্টগ্রাম শাহ আমানত বিমানবন্দরের পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন তসলিম আহমেদ।

তিনি বলেন, ‘সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে এয়ার অ্যারাবিয়ার ওই উড়োজাহাজটি শারজাহর উদ্দেশ্যে চট্টগ্রাম থেকে উড্ডয়ন করে। এরপর কলকাতার ওপার পর্যন্ত পৌঁছলে উড়োজাহাজটিতে যান্ত্রিক সমস্যা দেখা দেয়। পরে বিমানচালক রিস্ক না নিয়ে পুনরায় রাত ৯ টা ৩৭ মিনিটের দিকে চট্টগ্রামে উড়োজাহাজটি ফিরিয়ে এনে অবতরণ করান।’

তিনি আরও জানান, ‘বিমানটির ত্রুটি সমাধানে কাজ চলছে। ওই ফ্লাইটের ১৪৯ জন যাত্রী ছিল। যাত্রীদের বিমানবন্দরের লাউঞ্জে রাখা হয়েছে এবং তাদের খাবার সরবরাহ করা হয়েছে। পাশাপাশি রাত্রিযাপনের জন্য ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।’

;

দক্ষিণ আফ্রিকায় সন্ত্রাসী হামলায় ফেনীর যুবক নিহত

ছবি: সংগৃহীত

দক্ষিণ আফ্রিকায় সন্ত্রাসীদের গুলিতে প্রবাসী বাঙালি ব্যবসায়ী নুরুল হুদা লিটন (৩৫) নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন। তিনি ফেনীর দাগনভূঞার জগৎপুর গ্রামের লাল মোহাম্মদের বাড়ির এবাদুল হকের ছেলে।

শুক্রবার (২৬ জানুয়ারি) দক্ষিণ আফ্রিকার জোহান্সবার্গের হিলবো শহরে নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সামনে সন্ত্রাসী হামলার শিকার হন তিনি। শনিবার (২৭ জানুয়ারি) পরিবারের সদস্যরা মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেন।

জানা যায়, লিটন রাতে স্থানীয় সামিট ক্লাবের সামনে দাঁড়িয়ে মোবাইল ফোনে কথা বলছিলেন এ সময় তার পিছন থেকে এক সন্ত্রাসী এসে দুই রাউন্ড গুলি করে পালিয়ে যায়। আশপাশের লোকজনের সাহায্যে তাকে হাসপাতালে নেয়া হয়। হাসপাতালের কর্তব্যরত ডাক্তার জানায় গুলি অবস্থায় তার শরীর থেকে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হয়েছে। এতে ঘটনাস্থলে লিটনের মৃত্যু হয়েছে।

নিহতের চাচাতো ভাই মনির হোসেন সবুজ জানান, শুক্রবার রাতে নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে কাজ শেষে গাড়িতে উঠতে গেলে সঙ্গে সঙ্গে পূর্ব থেকে ওঁত পেতে থাকা সন্ত্রাসীরা তাকে লক্ষ্য করে এলোপাতাড়ি গুলি ছোঁড়ে। এতে ঘটনাস্থলেই সে মাটিতে লুটে পড়ে এবং পরে হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করে। শনিবার (২৭ জানুয়ারি) স্বজনদের কাছে তার মৃত্যুর খবর আসে।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, জীবিকার অন্বেষণে ২০১০ সালে দক্ষিণ আফ্রিকায় পাড়ি জমান লিটন। সেখানে নিজে দুটি ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেন। সে এবং তার ছোট ভাই মিঠুসহ দুটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করে আসছেন। গত সাত মাস আগে সর্বশেষ দেশে এসেছিলেন তিনি। বাড়িতে তিন তলা ফাউন্ডেশন বিশিষ্ট ঘরের নির্মাণ কাজ চলছিল তার। আগামী ফেব্রুয়ারি মাসের ১৫ তারিখে তার বাড়ি এসে বিয়ে করার কথা ছিল।

দাগনভূঞা সদর ইউপি চেয়ারম্যান বেলায়েত হোসেন স্বপন জানান, লিটনের মৃত্যুর খবরে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। তার মরদেহ দেশে আনতে সরকারের সংশ্লিষ্টদের কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ জানান তিনি।

দাগনভূঞা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নিবেদিতা চাকমা বলেন, সন্ত্রাসীদের গুলিতে প্রবাসী বাংলাদেশি নিহতের খবরটি জানতে পেরেছি। খুব শীঘ্রই উপজেলা প্রশাসন থেকে নিহতের পরিবারের সাথে যোগাযোগ করা হবে। মরদেহ দেশের আনার ক্ষেত্রে পরামর্শ সহ প্রয়োজনীয় সহায়তা করা হবে। এছাড়া প্রবাসী কল্যাণ তহবিল থেকে নিহতের পরিবারের জন্য সরকার নির্ধারিত অনুদান যেন খুব তাড়াতাড়ি পায় সে ব্যবস্থা করা হবে বলে জানান তিনি।

;

আন্তর্জাতিক মানের পর্যটন নগরী হবে কুয়াকাটা : প্রতিমন্ত্রী মহিববুর

ছবি: বার্তা২৪.কম

সূর্যোদয় সূর্যাস্তের লীলাভূমি পটুয়াখালীর কুয়াকাটাকে একটি আন্তর্জাতিক মানের পর্যটন কেন্দ্র হিসাবে গড়ে তোলার ঘোষণা দিয়েছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মহিববুর রহমান।

শনিবার (২৭ জানুয়ারি) বিকেল ৪ টায় তার নিজ এলাকা পটুয়াখালী-৪ কলাপাড়ার কুয়াকাটা রাখাইন মার্কেট থেকে সৈকত পর্যন্ত আরসিসি রাস্তা নির্মাণ কাজের উদ্বোধন শেষে একথা বলেন তিনি।

এ সময় তিনি আরো বলেন, পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটাকে গুরুত্ব দিয়ে ইতোমধ্যে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে একটি বিমানবন্দর তৈরির জন্য কথা বলা হচ্ছে। শিগগিরই এসব পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা হবে।

উদ্বোধন শেষে কুয়াকাটা পৌর আওয়ামী লীগ ও পৌর মেয়রের আয়োজনে প্রতিমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে রাখাইন মার্কেটে আয়োজিত এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যোগ দেন তিনি। তাকে সংবর্ধনা দিতে কুয়াকাটা ও এর আশপাশের কয়েক হাজার মানুষ জড়ো হন অনুষ্ঠানস্থলে।

কুয়াকাটা পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মনির আহম্মেদ ভূঁইয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন, কলাপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল মোতালেব তালুকদার, কলাপাড়া পৌরসভার মেয়র বিপুল হাওলাদার, ও কুয়াকাটা পৌরসভার মেয়র আনোয়ার হাওলাদারসহ উপজেলার বিভিন্ন নেতাকর্মীরা।

;

সাভারে ইটবোঝাই ট্রাক চাপায় যুবক নিহত

ছবি: বার্তা২৪.কম

সাভারের হেমায়েতপুরে ইটবোঝাই ট্রাক চাপায় অজ্ঞাতনামা এক যুবক নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় ট্রাকচালক পালিয়ে গেলেও ট্রাকটি জব্দ করা হয়েছে।

শনিবার (২৭ জানুয়ারি) রাত ১০ টার দিকে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের হেমায়েতপুরের জয়নাবাড়ি এলাকার চলন্তিকা হাউজিং এর সামনে আরিচাগামী লেনে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

প্রাথমিকভাবে নিহত যুবকের পরিচয় শনাক্ত করতে পারেনি পুলিশ। তবে পরিচয় শনাক্তের চেষ্টা চলছে।

সাভার হাইওয়ে থানা পুলিশ জানায়, হেমায়েতপুরের জয়নাবাড়ির চলন্তিকা হাউজিং এর সামনে রাস্তা পারাপারের সময় দ্রুতগামী একটি ইটবোঝাই ট্রাক ওই যুবককে চাপা দেয়। এ সময় ঘটনাস্থলেই মারা যান তিনি। পরে ইটবোঝাই ট্রাক রেখে পালিয়ে যায় চালক। খবর পেয়ে হাইওয়ে থানা পুলিশ ট্রাকটি জব্দ করে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

সাভার হাইওয়ে থানার উপপরিদর্শক (এসআই) জিল্লু বলেন, খবর পেয়ে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে থানায় আনা হয়েছে। নিহতের পরিচয় শনাক্তের চেষ্টা চলছে। পরিচয় শনাক্ত করা হলে পরিবারের সদস্যদের খবর দেওয়া হবে। তাদের অভিযোগের ভিত্তিতে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

;

সংবাদটি প্রথম প্রকাশিত হয় বার্তা ২৪-এ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *