আন্তর্জাতিক

ফুটপাতে শীতের পিঠার সমাহার

ডেস্ক রিপোর্ট: শীতের সতেজ শাকসবজি আমাদের যেমন আকৃষ্ট করে, ঠিক তেমনি শীতের পিঠাও আমাদের জন্য বাড়তি আনন্দ এনে দেয়। তবে সংকট হচ্ছে চাহিদা ও পছন্দ মতো শীতের পিঠা সংগ্রহ করা। যা অনেকটা কষ্টকর।

অগ্রহায়ণের নতুন ধানের চালের পিঠা না খেলে বাঙালিদের মনে অসম্পূর্ণ থাকে। একসময় শহর বা গ্রামের ঘরে ঘরে তৈরি হতো নানান ধরনের বাহারি সব স্বাদের পিঠা। বাড়ি বাড়ি ধুম পরতো পিঠাপুলি খাওয়ার। আধুনিক ইন্টারনেটের যুগে ইউটিউব থেকে রেসিপি দেখে বাড়ির মা-বোনেরা পিঠা তৈরিতে ঝুঁকে পড়েছেন। ফলে দেশীয় সব পিঠা এখন আর বাসাবাড়িতে খুব একটা তৈরি হয় না। তবে এসব পিঠার কদর এখন ফুটপাতের দোকানগুলোতে দেখা যাচ্ছে।

প্রতি বছর শীতের মৌসুম আসলেই শহরের বিভিন্ন রাস্তার মোড়ে এসব পিঠার দোকান লক্ষ্য করা যায়। শুধু শহরের মোড়েই নয়, শহরের বিভিন্ন পাড়া-মহল্লাতেও একশ্রেণির মানুষ এসব পিঠা তৈরি করে বাড়তি আয় করছে। এসব পিঠার দোকানে ভিড় করে শহরের নানা পেশার মানুষ।

শনিবার (৩ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় রাজশাহীর কাটাখালি এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, সেখানকার জামাল সুপার মার্কেটের আশে পাশে জমে উঠেছে পিঠাপুলির আমেজে।

এলাকা ঘুরে দেখা যায়, প্রতি পিস কুশলি পিঠা ১৫ টাকা, নারকেল পিঠা ২৫ টাকায, সুজি পিঠা ১০ টাকা, চীনা পিঠা ৩০ টাকা ও জর্দা পিঠা ৩৫ টাকায় বিক্রি করতে দেখা গেছে। এসব পিঠার দোকানে মাঝেমধ্যে এত ভিড় হয় যে অনেকেই দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থেকে অপেক্ষা করে পিঠা খেয়ে থাকেন এবং বাড়ির জন্য নিয়ে যান।

এসব মৌসুমি পিঠা ব্যবসায়ীরা শীতের ঠিক আগ থেকে শুরু করে এবং শীতের শেষ পর্যন্ত তাদের ব্যবসা চালিয়ে যান। এতে তারা শীত মৌসুমে বাড়তি আয় করে থাকেন বলে জানান স্থানীয় পিঠা ব্যবসায়ীরা।

তানাফ ও তার মামা বাচ্চু প্রায় দেড় মাস ধরে সেই স্টলে পিঠাপুলি বিক্রি করছেন। তারা জানান, শীতের পিঠা তৈরি করে খাওয়ার মতো অবস্থা অনেক পরিবারেরই নেই। আর সে কারণে শীতকালে বিভিন্ন স্থানে পিঠা উৎসব বা পিঠা মেলার প্রতি মানুষের আগ্রহ বাড়ে এবং মানুষ সেখান থেকে পিঠা সংগ্রহ করে থাকে। গ্রামীণ জীবনেও শীতকালে তেমন একটা পিঠা-পায়েসের আয়োজন এখন আর করা হয় না। একারণে আমরা এখানে ঐতিহ্য ধরে রাখতে পিঠা বিক্রির আয়োজন করেছেন।

তারা বলেন, এখানে নানা রকম পিঠা পাওয়া যাচ্ছে। শিশু কিশোর ও বয়স্করাসহ স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাই এসব দোকানের নিয়মিত ক্রেতা।

পিঠাপুলি নিতে এসেছেন নাজমুল ও শাইমা দম্পত্তি। তারা বলেন, ঐতিহ্যবাহী এই পিঠা এখন আর দেখাই যায় না এতো স্বল্প দামে এই পিঠা পেয়ে আমরা অনেক খুশি। স্থায়ী দোকান কিংবা ফুটপাতের দোকান থেকে প্রতিনিয়ত শীতের পিঠা কিনে তার সন্তানদের রসনা মেটাচ্ছে। সন্তানরাও দোকানের পিঠা খেয়ে আত্মতৃপ্ত হচ্ছে। তবে ঘরের তৈরি শীতের পিঠা খাওয়ার জন্য গ্রামে যাওয়ার সুযোগও অনেকের নেই। আমরা দুজনেই চাকরিরত অবস্থায় আছি, বাসায় বানাতে চাইলেও পারি না। তাই এখান থেকে নিয়ে বাচ্চাদের খাওয়াতে হচ্ছে। এখানকার খাবারগুলো এমনিতে স্বাস্থ্যসম্মতবাবেই বানানো হয়। এখানেও ঢেকে রাখা হয়। তাই নিতে পারি স্বাচ্ছন্দ্যে।

আরেক ক্রেতা আশিক বলেন, স্বল্প দামে এই দুর্দান্ত পিঠা হাতের নাগালে পেয়ে আমরা অনেক খুশি এবং আনন্দের সঙ্গে এই পিঠা খাচ্ছি। শীতকালে ঐতিহ্যবাহী বাংলার পিঠা খাওয়া হবে না, এটা অকল্পনীয়। শীতের পিঠা আমাদের দেশে যুগ যুগ ধরে চলে আসা একটা ঐতিহ্য। 

সংবাদটি প্রথম প্রকাশিত হয় বার্তা ২৪-এ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *